Kalyan Jewellers, Shabia-Mussaffah, Abu Dhabi

Shop No 1 & 2, Ground Floor
Abu Dhabi- 43680

971-25500733

Call Now

Opens at

<All Articles

দীপাবলি উত্‍সবকে আবার নতুন করে আবিষ্কার করুন কল্যাণ জুয়েলার্স-এর ভেদা কালেকশন-এর সঙ্গে

দীপাবলি বহু-প্রতীক্ষিত আলোর উত্‍সব যেখানে রঙ্গোলী তার আনন্দের-ও, আহ্বান জানাচ্ছে সেজে ওঠার জন্য আর দারুন দেখানোর জন্যে। দীপাবলি সঙ্গে নিয়ে আসে ভ্রাতৃত্ব, সম্পদ আর অতুলনীয় আনন্দ। এ এমন এক উত্‍সব, যা সবচেয়ে সেরা জাঁকজমকে পালিত হয়। কিন্তু যদি একটিমাত্র কোনও জিনিস থাকে যা আপনার সাজ-সজ্জাকে ঠিক উত্‍সবের আলোর মতই উজ্জ্বল করে তুলতে পারে, তা হল অলংকার।
ধনতেরস দীপাবলি উত্‍সবের মেজাজকে তৈরি করে দেয়। ধনতেরস-এর পবিত্র দিনে, যা পাঁচ দিনের দিওয়ালী উত্‍সবের প্রথম দিনে পড়ে, তখন কিছু কেনাকাটা করলে সৌভাগ্য আর সমৃদ্ধির দরজা খুলে দেয়।
গয়না জমানোকে ভবিষ্যতের বিলাস বহুল উত্তরাধিকার সৃষ্টির আর তাদের অনন্য সব গল্পে মজে থাকার সুযোগ বলেই ধরা হয়। এটা সুরক্ষার এক বিরাট উপায়ও হতে পারে। কিন্তু সবকিছুর উপরে, শৈল্পিক আর অতুলনীয় সৌন্দর্য এই অলংকারগুলির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। দিওয়ালী উত্‍সব ভারতের সর্বত্র ছড়িয়ে আছে। অঞ্চল ভেদে হয়তো আলোর উত্‍সব পালনের রীতি নীতি পাল্টাতে পারে, কিন্তু আনন্দটা সার্বজনীন। এই ভাবেই দিওয়ালী উদযাপনের ইচ্ছেটা ছড়িয়ে যায় ভারত জুড়ে। আলোর উত্‍সব সব দুঃখের চিহ্ন আর অন্ধকারের ইঙ্গিত প্রতীকীভাবে সরিয়ে দেয় আমাদের জীবন থেকে। সত্যিই দিওয়ালীর তাত্‍পর্য ভারতের সব পরম্পরার মধ্যে সবচেয়ে বিপুল। দিওয়ালী সকলের উত্‍সব, এটা ঐ উত্‍সবকে সকলকে সামিল করার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখতে শেখায়।
এই উত্‍সব উদযাপনের জন্য বেছে নেওয়া অলংকার ভৌগলিক সীমা ছাড়িয়েও যোগাযোগ ঘটাতে পারে কারণ এই উত্‍সব সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ঐতিহ্যবাহী অলংকারগুলোর নিজ নিজ এবং অনন্য শিল্পবোধ বর্তমান। সুতরাং,আলোর উত্‍সবের চেয়ে আর ভাল কী উপলক্ষ হতে পারে এমন ঝলমলে উপহার দেওয়ার? বিভিন্ন অঞ্চলের এয়ার্লূম জুয়েলারীর সম্পর্কে এমন কিছু গল্প আছে যা প্রত্যেকটি অনন্য।
এই আনন্দময় উত্‍সবের দিনগুলো সীমিত কিন্তু এই অলংকারগুলো থাকবে প্রজন্মের পর প্রজন্ম জুড়ে। প্রতিটি রত্নই একটা আলাদা অনুভূতির প্রতিফলন ঘটায়, যা শুধু একটা অলংকার নয়, যেখানে গভীর ভাবে, একজন নারী হওয়ার সার সত্যিটা আঁকড়ে ধরে।
অলংকার নারীর ব্যক্তিত্বকে জোর দিয়ে ফুটিয়ে তোলার পাশাপাশি তার সেরা বৈশিষ্ট্যগুলো প্রকট করে। একটি সুন্দর পোশাক কখনোই সম্পূর্ণ হয় না যদি না সঠিক অলংকার তাকে স্পষ্ট করে তুলে ধরে।
প্রাচীন অলঙ্কারে যদি একালের ছোয়া আর আঞ্চলিকতার সীমা ছাড়ানো সুচারু কারুকাজ থাকে তবে তা প্রত্যেক সংগ্রাহকের সম্পদ হয়ে ওঠে।
আধুনিক এই সব অ্যান্টিক গয়নার চোখধাঁধানো দীপ্তি আর পালিশ করা ঐশ্বর্য্য ছাড়াও সমকালীন এইসব অলংকারের এক একটি অংশ সম্পর্কে সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর কথা হল এর ঐতিহাসিক শিকড়। অলঙ্কার উত্‍সবের-প্রাচীন পরম্পরা আর এখনকার অলঙ্কারের ধারার নিখুত সম্মিলন বা ফিউশন।
কোনও মহিলা যিনি সুক্ষ্ম কারিগরী আর চিরকালীন ঐশ্বর্য্যর মধ্যে তালমিল খুঁজে তার সঙ্গে এখনকার রামধনু রঙা নকশায় সমন্বয় ঘটিয়ে আনন্দ পান, তার অলঙ্কার সংগ্রহে যে কটি অলংকার অতি অবশ্যই থাকবে, তার মধ্যে কল্যাণ জুয়েলার্স-এর ভেদা কালেকশন-একটি। সোনায় তৈরি সুচারু হাতের কাজের পরম্পরাগত, মূল্যবান এবং অতি মূল্যবান পাথর খচিত এই সব অলংকার আমরা বড্ড ভালবাসি। আমাদের এই কলেকশন ই হবে আধুনিক নারীর কাছে কম-ই হল বেশি আর ধ্রুপদী, স্লীক অথচ সফিস্টিকেটেড ডিজাইন তার বিশেষ পছন্দ।
এই দিওয়ালিতে প্রাচীন অলংকারের দেশ জোড়া নিদর্শন থেকে মিশিয়ে আর ম্যাচ করে নিন বা কিছু ডেলিকেট অথচ বিবৃতি–যোগ্য একালের সৃষ্টির ওপর নির্ভর করুন। এবারের উত্‍সবে আপনি সবসময়েই যে অলংকার-রসিক হতে চেয়েছেন, তাই হয়ে পড়ুন।
প্রত্যেক নারীর অবশ্যই যে সব গয়না থাকা উচিত, সেইগুলো জড়ো করে নিজেকে প্যাম্পার করুন । এমন একটা সুচারুভবে হাতের কাজে সমৃদ্ধ এয়ার্লূম অলংকারের সম্ভার তৈরি করুন, যার মধ্যে বিভিন্ন অঞ্চলের ছাপ আছে আর সেই সঙ্গে নানা অঞ্চলের কারিগরী দক্ষতার নিদর্শন রয়েছে। নথ, কাসু মালা, মঙ্গলসূত্র, স্তুপাকার আংটি, হীরের চুড়ি পলকি কাজের গয়না, মীনাকারী বা টেম্পল জুয়েলারী- এই সবই অলংকার রসিকের সংগ্রহে বাধ্যতামূলক ভাবে থাকার মত নিদর্শন।
তামিল নাড়ুর ধ্রূপদী অলংকার তার অসামান্য শিল্পকলার জন্য বিখ্যাত। এটি দক্ষিণ ভারতের সমৃদ্ধ ভারতীয় সংস্কৃতিতে ফুলেল নক্সা আর মোটিফ-এর সুন্দর নিদর্শন তুলে ধরে।
টেম্পল জুয়েলারী কলেকশনের সাহসী ও ভারী ধরনের সনাতন অলংকার আর চিরন্তন সব গয়নার সারি আপনাকে সকলের দৃষ্টির কেন্দ্রবিন্দু করে তুলবে। এ ছাড়াও ওই কলেকশনে রয়েছে প্রাচীন নানা অলংকার যেমন পশ্চাত বন্ধনী বা ওড্ডীয়নম, লম্বা চেন যেমন কাসু মালাই, মাঙ্গা মালাই, বা সবসময়েই চোখ টেনে রাখা কড়ি মালাই আর ছিমছাম, স্তরবিশিষ্ট চাভাড়ি। আপনার সংগ্রহে রাখুন একজোড়া ঝিমকি মাট্টেল। ঝিমকি কী? আরে ঝিমকি হল লম্বা ঘণ্টাকৃতি রত্নখচিত দুল, আর মাট্টেল হল হুক সহ চেন যেটা দুলগুলোকে আপনার চুলের সঙ্গে বাধা থেকে দুল জোড়াকে নিজের যায়গায় থাকতে সাহায্য করে। বেসারী আর বুল্লাকু হল সেইরকম নথ আর আংটি যা দুর্বল হৃদয়ের জন্য নয়। তার ওপর, একটা ইন্দো-ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে বুল্লাকু পরলে ফ্যাশনের পাল্লাটা বেস কয়েক ধাপ ওপরে উঠে যায়।
মহারাষ্ট্রের গয়না তার সূক্ষ্ম ধরনের টেম্পল মোটিফের জন্য বিখ্যাত।এর ওপরে, ধ্রুপদী অলংকার আবার ওই রাজ্যের বিখ্যাত সব বীর যোদ্ধা আর রাজাদের দ্বারাও অনুপ্রাণিত।
আপনার ধ্রুপদী বেশ-ভূষায় পূর্ণ মাত্রা এনে দিতে পরুন সমৃদ্ধ, রত্নখচিত অলংকার যা আপনার সাজের গভীরতা অনেক বাড়িয়ে তুলবে। গইর্মা নিমাহ দুল আর দময়ন্তী নিমাহ চুড়ির মত প্রাচীন ও সূক্ষ্ম কাজের গয়না, অনিন্দ্য মহারাষ্ট্রীয় হার, দুল ও চুড়ি আবিষ্কার করুন আমাদের অত্যুতকৃষ্ট জুয়েলারী কলেকশন থেকে।
পোলকি জুয়েলারী শ্বাশ্বত আর সেই সঙ্গে উত্তরাধিকারের একটা বোধ সঞ্চার করে। এই পোলকি জুয়েলারীর একটি গয়না সংগ্রহে রাখাটা ভারতীয় নারীর পক্ষে এক মুল্যবান সংযুক্তি কেননা এটা ধ্রুপদী অলংকার এক প্রাচীনতম ও সুন্দরতম নিদর্শন।
পোলকি জুয়েলারীর শিকড় রয়ে গেছে ইতিহাসের পাতায় আর এটি চিরকালই এক জনপ্রিয় ও মুগ্ধকর অলংকার। চমত্‍কার পোলকি নেকলেস কালেকশন, একালের (মুরভি আনোখি স্বর্ণহার) আর ধ্রুপদী (কারবরী আনোখি স্বর্ণহার), দুই-ই আমাদের প্রিয় ডিজাইন।
ডায়মণ্ড অবশ্যই নারীর সেরা সাথী। এটা যেন মহাজাগতিক নক্ষত্রের মতই ঝলমল করে আর এর আবেদনও কোমল আর সফিসটিকেটেড। ডায়মণ্ড সলিটেয়ারগুলো খুব সুন্দর হয়ে থাকে আর ওটা কখনোই আউট অফ স্টাইল হয়ে পড়ে না। যাই হক, ডায়মণ্ড সলিটেয়ার আংটি যেমন চিরকালীন ক্লাসিক, অন্যান্য রঙিন রত্নরও জনপ্রিয়তা বাড়ছে।
উজ্জ্বল নীল সাফ্যায়ার আর রেড স্পিনেল হল নিশ্চিত ভাবেই সেই বস্তু যা আপনি আপনার প্রিয়তমা কে উপহার দিতে পারেন। নীল সাফ্যায়ার সমৃদ্ধি ,আশীর্বাদ আর উপহার আনে। এ ছাড়াও, কেউ কেউ বলে ব্লু সাফ্যায়ার নেগেটিভ এনার্জি থেকে সুরক্ষা দেয়, মন শান্ত করে, আর অনুমান ক্ষমতা বাড়ায়। রেড স্পিনেল এয়ারিং সূক্ষ্ম পাতার ডিজাইন আর প্রদীপ্ত আভা নিয়ে দিওয়ালি উত্‍সবের সঙ্গে দারুন ভাবে মিল খেয়ে যায় । স্পিনেল, অধিকাংশ ক্রিমসন লাল রত্নের মতো অনুভুতি আর প্রাণবন্ততার সঙ্গে জড়িত। এই দুই রত্নের উভয়েই যে কোনও সংগ্রাহকের অবশ্য আহরণযোগ্য। যে কোনও চিরকালীন অলংকার আপনার বেশ-ভুষায় বাড়তি কিছু যোগ করে। কিন্তু ধরুন আপনি যদি উদযাপনের অঙ্গ হিসেবে হ্রস্ব ও সুন্দর কিছু চান, তাহলে সে ক্ষেত্রে আমাদের ক্যাটালগ-এ চুড়ি(সোনার চুড়ি), ছিম ছাম চেন(ইত্‍কলা নিভারা স্বর্ণহার) আর সুন্দর নথ (দীপেশী মুদ্রা স্বর্ণ নথ) ও রয়েছে, যা যে কোনও উপলক্ষে পরা বা উপহার দেওয়া চলে।
সমকালীন আর হাতে তৈরি জুয়েলারী যে মনোরম নিদর্শনে সমৃদ্ধ, এতে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু এ সত্ত্বেও, আসল মুক্তোর গয়নার একটি সেটের মতও কিছু হয় না। এইগুলোর পাশাপাশি ডায়মণ্ড ক্লাস্টার আংটিও কিন্তু যে কোনও অলংকার প্রেমির মন কেড়ে নেবে, যার ঐতিহ্যের প্রতি টান আছে আর সেই সঙ্গে চান যে তার গয়নাগুলো একালের অলংকারের ভাষাতেও কথা বলুক।
প্রত্যেক ভারতীয়ই দিওয়ালি উত্‍সবের অপেক্ষায় থাকেন আর একে স্বাগত জানান দু হাত বাড়িয়ে। পরিশেষে, আলোর উত্‍সব তর্কাতীতভাবে ভারতের সবথেকে প্রিয় উত্‍সব।এই দিনটি বিপুল উষ্ণতা আর অনুভুতি নিয়ে উদযাপন করুন। আমরা যতই বিশ্বনাগরিকতার দিকে এগোই না কেন, আমাদের অলংকারের বৈচিত্রর কোথাও আমাদের মনে রাখতে হবে।
উত্‍সবের এই মরশুমে দিওয়ালিকে প্রকৃত ভারতীয়ত্বর প্রতিনিধিস্বরূপ নতুন আলোয় উদযাপন করুন। ভিন্ন ভিন্ন প্রভাবের ও সাংস্কৃতিক বিনিময়ের মেলবন্ধন হয়। তাই আপনার সাংস্কৃতিক ও সামাজিকও ঐতিহ্য থেকে ঋণ গ্রহণ করুন আর দিওয়ালিকে তার আপন চেতনায় উপলব্ধি করুন। আনন্দের জন্য কিনুন, প্রিয়জনকে উপহার দিন, আর এমন এক বৈচিত্রময় সংগ্রহ গড়ে তুলুন, যা আজীবন সঙ্গে থাকে। আপনার উত্‍সবের অলংকার বেছে নিন এমন এক কলেকশন থেকে যা আমাদের ঐতিহ্য আর সবকিছু আপনার করে নেওয়ার কথা বলে, আর সেই সঙ্গে বর্তমানেও থাকে।
এই বোধ থেকেই আমরা আমাদের প্রিমিয়াম হাতের কাজের সুচারু জুয়েলারী কলেকশন উদযাপন করছি। এই উত্‍সব অপূর্ণ থেকে যাবে কল্যাণ জুয়েলার্স-এর অসামান্য সুন্দর দেশজোড়া অলংকার সম্ভার ছাড়া।

Can we help you?